আজ ২২শে মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ৫ই ফেব্রুয়ারি, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ

ঝিকরগাছায় প্রভাবশালী সাবেক ইউপি সদস্যের হাত থেকে বাঁচতে আদালতে মামলা-দৈনিক বাংলার নিউজ

বিশেষ প্রতিনিধি

যশোরের ঝিকরগাছায় প্রভাবশালী সাবেক ইউপি সদস্যের হাত থেকে বাঁচতে একটি অসহায় পরিবার বিজ্ঞ আদলতে মামলা দায়ের করেছেন। উপজেলার ১১নং বাঁকড়া ইউনিয়নের বড় খলশী গ্রামের মৃত ফায়েজ সরদারের ছেলে মোঃ ইব্রাহীম সরদার (৪০)। মামলা করা হয়েছে, বড় খলশী গ্রামের মৃত গহর মোড়লের ছেলে শরিফ মড়ল (৪৫), শফি মড়ল (৪০), মৃত আতর আলী সরদারের ছেলে মোজাম সরদার (৫২), মৃত দিনাত গাইনের ছেলে মোশা গাইন (৫০), হারুন গাজীর ছেলে তুষার (২০), মৃত বুদ্ধ গাজী ছেলে রেজাউল গাজী (৪৫), মৃত খয়রাত আলী সরদারের ছেলে লুৎফর সরদার (৬০), মোজাম সরদারের স্ত্রী আনোয়ারা বেগম (৪৫) ও হারুনের স্ত্রী জুলি বেগম (৩৭)। মামলা সূত্রে জানা যায়, বিবাদী তুষারের টিউবওয়েলের পানি গ্রামের একমাত্র চলাচলের রাস্তার উপর দিয়ে যাওয়ায় এই পানির কারণে রাস্তায় কাদাযুক্ত হয়ে গ্রামের মানুষের চলাচলের অযোগ্য হয়ে পড়ে। এই নিয়ে গ্রামের লোকজন তাদের কে পানি যাওয়ার বিষয়ে বরংবার বললেও তারা কোনো কর্ণপাত করে না। আরো বলে যে, রাস্তা দিয়ে পানি যাবে পারলে কিছু করে নিও। শুক্রবার (১৮ মার্চ) ২টার সময় পানি রাস্তার উপর দিয়ে যাওয়ায় বাদী ও স্বাক্ষীরা বলে রাস্তা দিয়ে তোমাদের টিউবওয়েল পানি যায় তোমরা যদি রাস্তার নিচে দিয়ে একটা পাইপ দেও তাহলে রাস্তাটা ভালো থাকতো। এই কথা বলার কারণে বিবাদীরা ক্ষিপ্ত হয়ে পড়ে এবং সকল আসামিরা দেশীয় তৈরী অস্ত্র শস্ত্র সজ্জিত হয়ে অতর্কিত বাদীর বাড়িতে অনধিকার প্রবেশ করে মা-বোন তুলে গালি গালাজ করে থাকে। বাদী, বাদীর ভাই হারুন সরদার ভিকটিম ও পরিবারের মহিলা সদস্যরা গালি দিতে নিষেধ করলে শরিফ মোড়লের হাতে থাকা চার ফুটের রামদা দিয়ে ভিকটিমের মাথায় স্বজোরে আঘাত করতে গেলে তার মাথা সরিয়ে নিলে সেই আঘাত ভিকটিমের ঘাড়ে লাগে এবং ভিকটিম পড়ে যায়। এছাড়াও বিবাদীদের ক্ষমতা প্রযোগ করে বাদীর পরিবারের অন্যান্য সদস্যদের মারপিট করে এবং বাদীর স্ত্রীর গলায় থাকা স্বর্ণের চেইন, হাতে থাকা চুরি খুলে নেয়, ঘর-গোয়াল ঘর ভাংচুর ও সোকেচ ভাঙ্গিয়া ব্যবসায়ীক অর্থ নিয়ে নেয়। বাদী ও তার পরিবারের সদস্যরা প্রথমে স্থানীয় ডাক্তার ও পরবর্তীতে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি হয়ে চিকিৎসা গ্রহণ করেন। মামলার ১নং বিবাদী শরিফ মড়লের সাথে যোগাযোগ করলে তিনি বলেন, মারামারি হয়েছে এটা ঠিক আছে। একজনের মাথা ফেটে গেছে আমি শুনেছি। তবে আমি ঘটনাস্থানে যায়নি কিছু বলতে পারবো না। তিনি ১নং বিবাদী হওয়ার বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, যদি তারা বানায় তাহলে আমি কি করবো ?

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     এ ক্যাটাগরীর আরো সংবাদ