আজ ২৩শে মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ৬ই ফেব্রুয়ারি, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ

সংবাদ প্রকাশের পর অবশেষে বদলে গেছে রংপুর সিটি বাজারের চিত্র

মোঃ আতাউর রহমান, রংপুর জেলা প্রতিনিধিঃ

রংপুরের প্রধান কাঁচাবাজার সিটি বাজারে সামাজিক দুরুত্ব মানার কোন বালাই ছিল না। প্রতিটি দোকান ও আড়তের সামনে ছিল মানুষের ভীড়। নিরাপদ দুরত্বেও বালাই না থাকার পাশাপাশি অনেকে মাস্ক ব্যবহার না করেই অনেকেই কদিন আগেও করেছেন কেনাকাটা।

বিষয়টি নিয়ে দৈনিক সাইফ অনলাইনে সংবাদ প্রকাশের পরে সিটি বাজার ব্যবসায়ী কমিটির সাধারণ সম্পাদক আলহাজ আলী হোসেন ছোট বাবু দ্রুত ব্যবস্থা গ্রহণ করে বাজারের চিত্র পাল্টে ফেলেছেন। বাজারের পরিস্থিতি আরো ভালো করতে তিনি প্রশাসনের হস্তক্ষেপও কামনা করেন।

এ ধরণের সামাজিক দুরুত্ব না মেনে না চলার কারণে তিনি তীব্র নিন্দা ও দু:খ প্রকাশসহ সিটি বাজারটি নগরীর অন্যত্র করোনা সময়কালীন স্থানান্তরের দাবি জানান।

নগরীর সিটি বাজার ঘুরে দেখা গেছে, প্রধান গেট ও পাশ্ববর্তি গেট সংলগ্ন গলির সামনে বাঁশ দিয়ে ব্যারিকেড দেয়া হয়েছে। প্রতি দোকানের সামনে ৩ ফুট দুরুত্বে সাদা গোল বৃত্ত দেয়া রয়েছে। এছাড়াও বাজারে ছিটানো হয়েছে।

ব্লিচিং পাউডার। এছাড়াও বাজারে মাইকে জানানো হচ্ছে সাবধান বার্তা।
বাজার করতে আসা শাহজাহান ও মরিয়ম বেগম জানান, নগরীতে সিটি বাজারে নিত্য পণ্য কিনে বের হওয়ার পরে রিক্সা বা অটো পেতে সমস্যা হয়। তাছাড়া বাজার করতে দেরী হলে এসব পণ্য নিয়ে বাসায় ফেরার পথে পুলিশী চেকপোষ্টে অনেক জবাব দিতে হয়। আসলে নিরাপদ দুরুত্ব আমাদের মানা দরকার কিন্তু মনের ভুলে অনেক সময় মানা হয় না। বাজার কমিটির সাধারণ সম্পাদক ভালো পদক্ষেপ নিয়েছেন। আমরা দ্রুত সময়ে বাজার করে বাসায় অবস্থান করবো।

রংপুর সিটি বাজার ব্যবসায়ী সমিতির সাধারণ সম্পাদক আলহাজ আলী হোসেন ছোট বাবু বলেন, আমরা প্রতিদিন বাজারের মসজিদের মাইকে নিরাপদ দুরুত্ব বজায় রাখার আহবান জানাচ্ছি।
বাজারে সকাল ১০ টা থেকে বিকাল ৫টা পর্যন্ত প্রায় লক্ষাধিক লোকের সমাগম বাজারে ঘটে। করোনা ভাইরাস চলমান সময়ে সিটি বাজার রংপুর নগরীর জিলা স্কুল, ঈদগাহ মাঠ অথবা ষ্টেডিয়ামে স্থানান্তর করা জরুরী। এখানে স্থান ছোট হওয়ায় মানুষ কথা শুনতে চায় না। অন্যত্র বাজার নিলে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর তত্বাবধান থাকায় নিরাপদ দুরুত্ব মানতে বাধ্য হবে ক্রেতারা।

আমি বাজারের গত কয়েকদিনের দুরুত্বহীন এমন অবস্থার জন্য দু:খ ও নিন্দা প্রকাশ করছি। পাশাপশি সামাজিক দুরুত্ব বাড়াতে জেলা প্রশাসন, সেনাবাহিনী ও আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর কঠোর হস্তক্ষেপ কামনা করছি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     এ ক্যাটাগরীর আরো সংবাদ